দুর্যোগকালীন সময়ে ত্রাণ কর্মসূচী: দ্রুত, সঠিক, কার্যকর

জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। নেটজ বাংলাদেশে মানুষের মর্যাদা রক্ষার এবং তাদের ক্ষুধা নিবারণের জন্য লড়াই করে। প্রাকৃতিক দূর্যোগের সময়ে আমরা শুধুমাত্র খাদ্য বিতরন করে থাকি: দক্ষ ত্রাণকর্মীরা মানুষের প্রয়োজনানুযায়ী চাল, ডাল, পানি এবং শিশুখাদ্য সরবরাহ করে থাকে।নেটজ এর সদস্যরা এই গুরুত্বপূর্ণ সাহায্য যেখানে মানুষের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সেখানে পৌছানোর নিশ্চয়তা দেয়। এসময় চিকিৎসক সেবাদল জরুরী চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকে।

প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবিলায় প্রতিরোধ ব্যবস্থা

সাম্প্রতিক বছরগুলোর প্রায় সময়ই ঘূর্ণিঝড় ও বন্যার কারনে, দুর্যোগ প্রতিরোধ ও জরুরি সহায়তার জন্য ব্যবস্থা ও উদ্যোগ গ্রহণ করেছে নেটজ। ২০০৭ সালে বাংলাদেশ দুইবার ভয়াবহ ভাবে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে পড়েছিল; গ্রীষ্মের সময়ে একটি ভয়াবহ বন্যা ও নভেম্বরে ধ্বংসাত্মক ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় সিডরের দ্বারা। স্থানীয় সহযোগী প্রতিষ্ঠানের সহযোগীতায় নেটজ যথাসম্ভব দ্রুত মানবিক সহায়তা প্রদান করে : এই জরুরি অবস্থায় তিন সপ্তাহ ধরে ১ লক্ষ ২ হাজার শিশু সহ, ১ লক্ষ ৮১ হাজার মানুষকে খাদ্য সরবরাহ করা হয়।

প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের বিরুদ্ধে নিজেদের স্বনির্ভর করে গড়ে তোলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এতে করে দরিদ্র পরিবারগুলোকে দীর্ঘস্থায়ী ভাবে টেকসই সাহায্য করা যায়।

  • স্থায়ীভাবে পর্যাপ্ত উপার্জন করার বন্দোবস্ত করা

  • অর্থ সঞ্চয় গড়ে তোলা

  • শিক্ষা গ্রহণ করতে সাহায্য করা; কেননা এই সম্পদ তারা যেকোনো জয়গায় নিয়ে যেতে পারবে

  • স্বাস্থ্য সেবাকে নাগালের মধ্যে আনার ব্যবস্থা করা

জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে অভিযোজন

বাংলাদেশ সেসব রাষ্ট্রের মধ্যে অন্যতম যেখানে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সবচেয়ে প্রকট- বর্তমানে এবং ভবিষ্যতের কয়েক দশকেও তাই থাকবে। হতদরিদ্র মানুষেরা জলবায়ুর পরিবর্তনে সবচেয়ে কম অবদান রাখছে কিন্তু তারাই সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী। নিয়মিত বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব ধীরে ধীরে বাড়ছে।

নেটজ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে দরিদ্রতম পরিবারগুলোকে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মানিয়ে নিতে সহযোগিতা করেঃ

• ভবিষ্যত বিপর্যয়ের বিরুদ্ধে নিজেদের রক্ষা করার জন্য স্থানীয় কৌশল বিকাশের মাধ্যমে

• দুর্যোগ প্রতিরোধ করতে প্রশিক্ষণ এর মাধ্যমে

• সম্ভাব্য বন্যা দূর্গত এলাকায়, স্থানীয় স্কুলগুলোর মাটি ফেলে ভূমির উচ্চতা বাড়ানোর মাধ্যামে

এছাড়াও, নেটজ বহ্মপুত্র ও তিস্তা নদীর পার্শ্ববর্তী দশটি এলাকাকে বন্যায় নিরাপত্তা দিয়ে সাহায্য করে থাকে। এখানে ১৭ হাজার ৫০০ মানুষ বন্যার সময়ে আশ্রয় গ্রহণ করতে পারে।

NETZ e.V. Bangladesch
Volksbank Mittelhessen
IBAN: DE82 513 900 0000 0000 6262
BIC: VB MH DE 5F

অনলাইনে অনুদান করুন

অবশ্যই আপনি আপনার অনুদানের জন্য একটি রশিদ পাবেন এ কারনেই দয়া করে আপনার ঠিকানা সম্পর্কে আমাদেরকে অবহিত করুন